উচ্চমাধ্যমিকের প্রথম সেমেস্টারে পাশ-ফেল থাকছে না

উচ্চমাধ্যমিকের প্রথম সেমেস্টারে কোনও পাশ-ফেল থাকছে না। দুটো সেমেস্টারে প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতেই পাশ-ফেল নির্দিষ্ট হবে। শনিবার জানিয়েছেন উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি চিরঞ্জীব ভট্টাচার্য। এদিন উচ্চমাধ্যমিক স্তরের ৪৭টি বিষয়ের সিলেবাস বদল নিয়ে গঠিত বিষয় ভিত্তিক সাব-কমিটির প্রথম বৈঠক ছিল। বিজ্ঞান- সহ ১০-১২টি মূল বিষয়ের এই সাব-কমিটিতে শহরের কয়েকটি সিবিএসই স্কুলের শিক্ষককেও রাখা হয়েছে।

এই প্রথম উচ্চমাধ্যমিকের পাঠ্যক্রম বদলের ক্ষেত্রে সিবিএসই বোর্ডের অধীনস্থ স্কুলের শিক্ষকদের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে। সাব-কমিটির সদস্যদের ৩১ জানুয়ারির মধ্যে সিলেবাস বদলের প্রাথমিক কাজ শেষ করতে বলা হয়েছে। যুগ এবং সর্বভারতীয় স্তরের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সিলেবাস বদল এবং সেই সিলেবাসকে সেমেস্টার অনুযায়ী ভাগ করবে কমিটি। একাদশ ও দ্বাদশ মিলিয়ে চারটে সেমেস্টারে পুরো সিলেবাস ভাগ হবে। প্রত্যেকটা টপিক অনুযায়ী নম্বর, প্রশ্নের ধরন, ক্লাসের সময় এবং মডেল প্রশ্নপত্রও তৈরি করবেন কমিটির সদস্যরা। ২০২৪-২৫ শিক্ষাবর্ষ থেকে পরিবর্তিত সিলেবাস এবং সেমেস্টার পদ্ধতি চালু করতে চায় সংসদ।

READ MORE ফেসবুক লাইভ করতে গিয়ে বাইক দুর্ঘটনায় মৃত্যু

সাব-কমিটিতে সিবিএসই স্কুলের বিষয়-বিশেষজ্ঞদের রাখা প্রসঙ্গে চিরঞ্জীববাবু বলেন, ‘কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের ক্ষেত্রে সিবিএসই বোর্ডের স্কুলগুলির অভিজ্ঞ শিক্ষকদের সাহায্য প্রয়োজন রয়েছে। কারণ আমরা কেন্দ্রীয় বোর্ডের সিলেবাস দেখে নিতে চাই।’ সর্বভারতীয় স্তরে বিভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষায় ভাল ফল করার জন্য এই বিষয়গুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইঞ্জিনিয়ারিং, ডাক্তারি এবং সারা দেশের কলেজগুলিতে ভর্তির যে পরীক্ষা হয় তার প্রশ্ন এনসিইআরটির সিলেবাসের ভিত্তিতেই হয়। ফলে চেষ্টা করা হচ্ছে যাতে এই বিষয়গুলোর ক্ষেত্রে এনসিইআরটির বই এবং সিবিএসইর সিলেবাস অনুসরণ করা যায় বলে জানান চিরঞ্জীববাবু। তবে ‘কপি-পেস্ট’ করা হবে না বলে জানান তিনি। কারণ বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে এনসিইআরটির বই যতটা সহজে অনুসরণ করা সম্ভব ভাষা এবং ইতিহাস-ভূগোলের মতো বিষয়ের ক্ষেত্রে স্থানীয় বিষয়কে প্রাধান্য দেওয়া হবে।

সেমেস্টার পদ্ধতি নিয়ে সংসদের তরফে স্কুল শিক্ষা দপ্তরে পাঠানো প্রস্তাবে বলা হয়েছে প্রথম সেমেস্টারের প্রশ্ন এমসিকিউ পদ্ধতিতে হবে। সেক্ষেত্রে এই পরীক্ষা অর্ধেক নম্বরে হতে পারে। উদাহরণ হিসেবে, পদার্থবিদ্যায় যদি ৭০ নম্বর মোট থাকে তাহলে প্রথম ও দ্বিতীয় সেমেস্টার ৩৫ নম্বরের হবে। দুটি সেমেস্টার মিলিয়ে পরীক্ষার্থী ৭০-এর মধ্যে কত পেল তার ভিত্তিতে মোট নম্বর দেওয়া হবে। এর সঙ্গে প্র্যাকটিক্যালের নম্বর যোগ হবে। আরেকটি প্রস্তাবে বলা হয়েছে দুটি সেমেস্টারই ৭০ নম্বরের হবে। চিরঞ্জীববাবু জানান, ‘সেমেস্টার পদ্ধতি চালু নিয়ে দপ্তরের কমিটি এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে। তবে সামগ্রিকভাবে পাশ করার জন্য একজন পরীক্ষার্থীকে ৩০ শতাংশ পেতেই হবে এবং প্র্যাকটিক্যাল বা প্রোজেক্টে পাশ করতেই হবে। এই নিয়মে বদল হচ্ছে না।’

Leave a Comment

Karmasangsthan News is a West Bengal lading Bengali Online News Website, Which provide all the Job news, Educational news, Trending News, Entertainment And Others, All the post write in local language i.e; bengali, so the all candidates can read carefully.

Site Links

Karmasangsthan.Live

Employment

Educational

Upcoming